Farmers Organisation: A tale of Rup Narayan Roy


3 Days long  agriculture symposium kicked off at National Press Club, Dhaka orgnaised by Campaign for Sustainable Rural Livelihood (CSRL) on 09 March 2010. After a colourful  inagural session, three parallel session held on Farmers Organisation, Agricultural inputs and access to natural resources at different auditorium of press club. Campaign for Sustainable Rural Livelihood (CSRL) organised about 200 grassroots organisations last two years for comprehensive agarian reforms of agriculture. 

We have a great history of farmers movement like Te-Bhaga Andolon, Tonk Bidroho, Nankar Bidroho, Fakir-Sannash Bidroho, Saotal Bidroho in Indian Sub-continent, particularly in Bangladesh Region. Several times, I heard the story of Rup Narayan Roy, one of communist MLA elected at first time in 1946 from Fulbari, Dinajpur as farmers leader along with other two Joyti Basu as Rail Union Leader from Culcutta and Ratan Lal Brahamin as Tea Garden Labour Leader from Darjeeling. My beloved mother told me the story after failing to make barrier to me  from joining in student politics as a high school student. 

She had a very little idea about politics, but in her speech, `While I came to your home as a bride, I saw your home covered by Tambo (Samiyana). I thought, tambo was being covered due to marrige ceremony. But a week went away, nobody put down the tambo and I found after a week, a lot of people came to home at night and Rup Narayan talked with others about politics. I came to know that your grandfater also did politics with Rup Narayan. I also came to know that they were communist and discussed about a state where all will be equal, no poor, no rich. I was responsible to serve them tea whole night. I made tea in a birat deski (cooking stensils) and served about 100 of people in every night. I also came to know that Rup Narayan sold his land and did the politics. After a few year, I heard that he was killed by some unkown people. Now the son of Rup Narayan is daily waged labour in agriculture. No equality established, we have rich, we have poor; but Rup Narayan made his son a waged labourer due to sell his own property for politics lossing his own life. It is the great history of your communist politics’. Again and again my mother told me these story during my student life to motivate her beloved son for not doing politics. My mother couldn’t success, but time made it. I wait to hear about Rup Narayan Roy from our aged leaders, but nobody remember him. Only  I found a very little article on him written by Ajoy Roy in a daily newspaper in last 39 years of my life.   

But I feel inspire by remembering the story and as usual I try to know about history of farmers struggle! So, in this symposium, normally I feel inspire to attend in discussion on farmers organisation. In my childhood, I can remember, I found a strong farmers movement in our rural villeges which is totally absent now. Why?

I try to find out the answer! But failed! As like others as a practioner of development field, we always put our finger in international and national policies and its influencers; Oviously, it has impacts, but who will break these system? The simple answer, we need organisation of committed people! In the discussion, some people talked for talking without information. Somebody said, we need Land Uses Policy, but we have it. Somebody said, we have not agricultural policy, but we have it and last year a revised draft agricultural policy has been formulated. If we read the land uses policy 2001, we will get a clear picture of policy advocacy! There have not any distinction between having policy and not having policy. So, why we always try to discuss the macro issues without realising the micro issues which are directly related with our daily lives!  For building farmers organisation, the farmers should reaslise the link of marco level policy, rules and laws through practicing micro issues related to their daily lives. This symposium could be catalyst to initiate the process! (cont.)

10.03.2010, 2nd Day of Symposium: Today I have joined a session on  Excluded and Marginalised Group where Labour Law for waged agricultural workers is discussed. Most of the time, people talks about agriculture, but nobody thinks about the agricultural waged workers. Recently I am conducting a study on it, so it make a special interest to join this session. I am waited, but not get anything from this symposium. 

Read about Rup Narayan Roy:

Lest we forget comrade Moni Singh: A leader of all people, by KG Mostofa: In the general elections of 1946, Comrade Moni Singh was a candidated from the Communist Party. His constituency included Netrokona, Kishoreganj and partly Mymensingh Sadar. The Congress candidate indulged in a nasty campaign, saying that the Communist were British agents who wanted to sabotage the quit India movement of Mahatma Gandhi. Only three of Communist Party’s candidates returned to the provincial Assembly. They were comrade Jyoti Basu, Rup Narayan Roy and Ratan Brahmia.

Indian Economic and Social History Review

Caste, Culture and Hegemony: Social Domination in colonial Bengal

Comrade Illa Mitra: A tributeThe movement sparked off in an area under Ps Chirirbandar in the district of Dinajpur. The area had a local communist leader, Shri Rupnarayan Roy, himself a small land owning farmer & local organizer of Krishak Samity, first and only MLA (member of the legislative assembly) of Bengal assembly elected from CPI ticket in 1946 election. He, together with other peasant leaders of the locality led a movement in and around his locality & organized the peasants mostly Hindus belonging to Kshatriya caste & some Muslim cultivators in a grand assembly on the day when jotdars men would come to collect 50% share of the corps. The assembled farmers refused to give 50% , instead they offered 33 % out of total yield. A serious fight flared up between the jotdars’ armed men and the adamant peasants resulting several injuries to both parties. Police came to the rescue of the jotards’ men and in doing so a peasant was killed in police fire. The event took serious turn; local villagers came on the side of the peasants and police had to retreat. But couple of days later reinforced police force set a reign of terrors in village after village in Chirirbandar police station- the leaders were haunted out, even common villagers including women were not spared from their physical torture and repressive action. Common methodology used by the police for physical torture were divestiture of clothe of womenfolk followed by beating with lathes and for men putting the man in between two hard bamboos and the sliding those bamboos over the body from feet to head apart from kicking with boots and charging with lathes and iron rods. Hundreds of villagers were arrested.

Departure of Red Flag Guru: Basu was elected to Bengal Provincial Assembly in 1946 from the Railway Workers constituency. Ratanlal Bramhan and Rupnarayan Roy were the other two Communists who were elected.

Caste, protest and identity in colonial India

Life Sketch of Jyoti Basu: In that year, Bengal Assam Railroad Workers’ Union was formed and Basu became its first secretary. Basu was elected to Bengal Provincial Assembly in 1946 from the Railway Workers constituency. Ratanlal Bramhan and Rupnarayan Roy were the other two Communists who were elected.

60 YEARS OF OUR INDEPENDENCE AND THE LEFT: SOME THOUGHTS::I entered the Bengal Legislative Assembly in 1946 defeating Humayun Kabir from the railway’s constituency. Only three communist candidates won the elections –Comrade Rupnarayan Roy from Dinajpur, Comrade Ratanlal Brahman from Darjeeling and myself.

http://www.jibeshsarkar.in/darjeeling.pdf

Chapter IX: Independence and Partition: Rupnarayan Roy could not become a member of the new assembly since his constituency fell in East Pakistan. We were left with only two members – Ratanlal Brahman and myself.

রিকশা-ভ্যান চালিয়ে সংসার চলে সাবেক এমএলএ’র সন্তানদের

০ ফুলবাড়ি (দিনাজপুর) সংবাদদাতা, দৈনিক ইত্তেফাক, ২৪ মার্চ ২০১০

২৪ মার্চ বৃটিশ বিরোধী ও তেভাগা আন্দোলনের অন্যতম নেতা এবং বৃটিশ শাসিত ভারতের ১৯৪৬ সালের অবিভক্ত বাংলার সাবেক এমএলএ প্রয়াত রূপ নারায়ণ রায়ের ৩৭তম মৃত্যুবার্ষিকী। ৩৬ বছর পূর্বে ১৯৭৪ সালের আজকের এই দিনে রাতে একদল দুষ্কৃতকারী বাড়ির ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘর থেকে টেনে হেঁচড়ে আঙ্গিনায় নিয়ে রাইফেলের বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে অসুস্থ রূপ নারায়ণ রায়কে। এ নৃশংস হত্যাকান্ডের ব্যাপারে তখন থানায় মামলা হলে এলাকার কয়েকজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। প্রয়াত এ নেতার রাজনৈতিক দল বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) প্রতি বছর সাধ্যমতো দিবসটি উদযাপন করে আসছে।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ি উপজেলার ৫নং খয়েরবাড়ি ইউনিয়নের লালপুর গ্রামে নিম্নবিত্ত পরিবারে জন্ম সাবেক এই এমএলএ রূপ নারায়ণ রায়ের। সাম্যবাদে বিশ্বাসী এ নেতা অবিভক্ত ভারতের কমিউনিস্ট পার্টিতে যোগ দিয়ে কৃষক সংগঠনের কাজ করেন। তার নেতৃত্বেই লালপুর গ্রামে ১৯৪৪ সালে কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এই কৃষক সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ভারতের পশ্চিম বঙ্গের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত জ্যোতিবসুসহ অসংখ্য বামনেতা। পার্টির নির্দেশে বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন, জমিদার-জোতদারদের বিরুদ্ধে এবং তেভাগা আন্দোলনের নেতৃত্ব দিতে গিয়ে জীবনের বেশির ভাগ সময় কারাগারেই কাটাতে হয়েছে তাকে।

কৃষকদের নেতৃত্ব দেয়ার কারণে ১৯৪৬ সালে বৃটিশ শাসিত ভারতের অবিভক্ত বাংলায় অনুষ্ঠিত বিধান সভার নির্বাচনে কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে এমএলএ নির্বাচিত হন। এজন্য বিধান সভা থেকে একটি পরিচয়পত্র দেয়া হয়েছিল রূপ নারায়ণ রায়কে। ঐ নির্বাচনে কমিউনিস্ট পার্টি থেকে ১৩জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিয়ে রূপ নারায়ণ রায়সহ ৩ জন জয়ী হন। অপর দুইজন হলেন ভারতের পশ্চিম বাংলার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত জ্যোতিবসু ও দার্জিলিংয়ের চা শ্রমিক নেতা রতন লাল ব্রাহ্মণ।

দেশ বিভাগের পর জ্যোতিবসু, রতন লাল ব্রহ্মণসহ অসংখ্য নেতা ভারতে চলে গেলেও নাড়ির টানে নিজ জন্মভূমিতেই থেকে যান রূপ নারায়ণ রায়। পরে ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানসহ ৭১এর মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক হিসেবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন এই নেতা। দেশ স্বাধীনের পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ গড়ার কাজে মনোনিবেশ করার এক পর্যায়ে দুষ্কৃতকারীরা রাতের অন্ধকারে কাপুরুষের মতো হত্যা করে এই মহান বিপ্লবী নেতাকে।

রূপ নারায়ণ রায়ের কনিষ্ঠপুত্র দিনমজুর পরিমল চন্দ্র রায় (৬২) বলেন, তার বাবা মৃত্যুর সময় বাড়ির একখন্ড ভিটেমাটি এবং ৫বিঘা জমি এবং স্ত্রী প্রভাতি রাণী রায়সহ তিনপুত্র ও ছয়কন্যা সন্তান রেখে যান। ৫বিঘা জমি বিক্রি করে বোনদের বিয়ে দিয়েছেন ভাইরা। আর বসতভিটা মাটিটুকু তিনভাই ভাগ করে এক একজন পান ৩৩ শতাংশ করে। ঐ জমি বিক্রি করে তিনি ব্যবসা করতে গিয়ে লোকসান খেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে এখন ঠাঁই নিয়েছেন উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের বাজিতপুর গুচ্ছগ্রামে।

দিনমজুরি তার জীবিকা নির্বাহের পথ। মেঝভাই নির্মল চন্দ্র রায়ও তার বসতবাড়ির জায়গা বিক্রি করে চলে গেছে শ্বশুরবাড়ি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামে। সেখানেই দিনমজুরি করে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন তিনি। শুধুমাত্র বড়ভাই বিমল চন্দ্র রায় থেকে যান পিতার ভিটেমাটিতে। কিন্তু তার মৃত্যুর পর তার স্ত্রী দুই ছেলে ও মেয়েকে নিয়ে চলে যান পিতার বাড়ি বিরামপুরে। তবে বাপ-দাদার ভিটেমাটি ছেড়ে যাননি বিমল চন্দ্র রায়ের বড়পুত্র ও রূপ নারায়ণ রায়ের নাতি রিকশা-ভ্যান চালক উত্তম কুমার রায়। সেই এখন তার দাদা সাবেক এমএলএ রূপ নারায়ণ রায়ের শেষ স্মৃতি লালপুর গ্রামের বসতভিটে মাটিটুকু আঁকড়ে ধরে রেখেছে। কিন্তু সেও এখন অন্ধ হয়ে গেছে অর্থের অভাবে চোখের চিকিৎসা করাতে না পেরে চোখের আলো হারিয়ে বাড়িতেই বসে থাকছে আর গ্রামের এর-ওর কাছে চেয়ে পেট চালাচ্ছে।

Farmers Organisation: A tale of Rup Narayan Roy

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s